নিম গাছের (Indian Lilac) বৈশিষ্ট্য।

Indian Lilac এর ছবি

নিম গাছ দেখতে কেমন ,কতটুকু লম্বা হয় ,তার বৈজ্ঞানিক নাম ,ইংরেজি নাম ,সাদ,গন্ধ, রং, অবস্থা সকল কিছু জানাবো এবং বুঝাবো এই প্রতিবেদনে।

তাই যাদের নিম গাছের বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য জানার প্রয়োজন আজকের এই প্রতিবেদনে সেসব প্রশ্নের উত্তর জানাবো। আশা করি নিম গাছ নিয়ে প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ পড়বেন।

আরও পড়ুন: 👆তুলসী গাছের বৈশিষ্ট্য  সম্পর্কে জেনে নিন 

নিম গাছ কি 

Indian Lilac (নিম গাছ) হল একটি ঔষধি গাছ। যার গুনাগুন বলে শেষ করা যাবে না। নিম গাছের ফুল, পাতা ,বাকল ,জড় সবই কাজে লাগে। নিম গাছের গুনাগুনের কথা বিবেচনা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিম গাছকে "একুশ শতকের বৃক্ষ" বলে ঘোষণা করেছে ।

নিম গাছের প্রচলিত নাম: নিম/তিতা /ঘোড়া নিম।

নিম গাছের ইংরেজি নাম:  Indian Lilac

নিম গাছের ইউনানী নাম: আজাদরখতে হিন্দি।

নিম গাছের আয়ুর্বেদিক নাম: নিম্ব।

নিম গাছের বৈজ্ঞানিক নাম: Azadireachta indica A.jum .

 নিম গাছের পরিবার: Meliaceae .

নিম গাছের ব্যবহার্য অংশ: সম্পূর্ণ গাছ।

নিম গাছের অবস্থা: শুকনো/কাঁচা ।

নিম গাছের রং: নিম পাতা ও ফল কাঁচা অবস্থায় সবুজ, পাতা শুকনা অবস্থায় বাদামী ।

নিম গাছের গন্ধ কেমন: ফুলের গন্ধ মধুর ন্যায় ।

নিম গাছের স্বাদ: খুবই তিতা ।

নিম গাছ কিভাবে বংশ বৃদ্ধি করে: বীজ থেকে ।

নিম গাছের আকার-আকৃতি: 

নিম গাছ একটি বর্ষজীবী ও চিরহরিৎ বৃক্ষ। আকৃতিতে ৪০ থেকে ৫০ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়। নিম গাছের কান্ডের ব্যাস ২০ থেকে ৩০ ইঞ্চি পর্যন্ত হতে পারে। ডালের চারদিকে ১০ থেকে ১২ ইঞ্চি যৌগিক পত্র জন্মে। পাতাকাস্তের মত বাঁকানো থাকে এবং পাতার কিনারায় ১০ থেকে ১৭টি করে খাজযুক্ত অংশ থাকে। পাতা ২.৫ থেকে ৪ ইঞ্চি লম্বা হয়। নিম গাছ সাধারণত প্রাপ্তবয়স্ক হতে সময় লাগে ১০ বছর। 

নিম গাছ কোথায় দেখতে পাওয়া যায়: 

ভারত ও বাংলাদেশের সব অঞ্চলেই প্রায় দেখা যায়। তবে নিম গাছ সাধারণত উষ্ণ আবহাওয়া প্রধান অঞ্চলে ভালো হয়। বাংলাদেশের উত্তর অঞ্চলে নিম গাছ বেশি জন্মে।

নিম গাছের মূল রাসায়নিক উপাদান: 

স্যাপোনিন,ফ্ল্যাভনয়েড,এলকালয়েডস,আজাডিরেকটিন,নিম্বিডিন, এসকরবিক এসিড, এমাইনো এসিড, প্রোটিন, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট, ক্যালসিয়াম ইত্যাদি 

নিম গাছের কার্যকারিতা:

নিম গাছ হল পারিবারিক ফার্মেসী। মাথার খুশকি নিরাময়ে নিমের রয়েছে আশ্চর্য গুনগুন ক্ষমতায়। চুলকানি খোঁজ পাচরা ,দাদ ,এক জিমা ,ব্রণ ,বসন্তের দাগ দূর করতে নিমগাছ ও নিম পাতার ব্যবহার ব্যাপক। চুল পাকা, চুল পড়া ও চুলের ভঙ্গুরতা প্রতিরোধে নিম গাছ ও নিম পাতা অতুলনীয়।  দাঁত নড়বড়ে হলে নিম্নের দাতুল বা মেসওয়াক ব্যবহার করা যায়। নিম গাছ ব্যাকটেরিয়া ও ফাংগাল ইনফেকশন নিরাময় করে ।

উপসংহার

আসা করি, আজকের এই প্রতিবেদনটি আপনার খুব ভালো লেগেছে। আজকের এই প্রতিবেদনটি Indian Lilac এর ব্যপারে আলোচনা করা হয়েছে। এখন আপনি নিম গাছ সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আপনার সুস্বাস্থ্য কামনা করছি। আমাদের ওয়েবসাইটে প্রতিদিন তথ্যবহুল প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। তাই আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন। আসসালামুয়ালাইকুম, ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
2 জন কমেন্ট করেছেন ইতোমধ্যে
  • Robiulali56
    Robiulali56 ১৯ জুলাই, ২০২৩ এ ১০:২৮ AM

    খুবই সুন্দর হয়েছে ভাই, সাথে আছি চালিয়ে যান

  • lifetriks24
    lifetriks24 ১৯ জুলাই, ২০২৩ এ ১১:০৫ AM

    ধন্যবাদ ভাই সাথে থাকার জন্য

মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url