সোরা (টেক্সট টু ভিডিও মডেল)

সোরা (টেক্সট টু ভিডিও মডেল) এর ছবি
টেক্সট টু ভিডিও মডেল হল একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মডেল। যা পাঠ্যকে ভিডিও ফরমেটে রূপান্তরিত করতে ব্যবহার করা হয়। এই মডেলগুলি প্রায়শই গভীর শিক্ষার টেক্সট টু ইমেজ বা টেক্সট টু ভিডিও মডেলের সাথে সম্পর্কিত হয়। এই প্রক্রিয়ায় সাধারণত প্রথমে টেক্সট থেকে ইমেজ বা ভিডিও সৃষ্টি করা হয়, এবং তারপরে অতিরিক্ত প্রক্রিয়ায় সংস্করণ বা সাজানো হয়। এই মডেলগুলি মূলত ক্রিয়াশীল ভিডিও তৈরি করতে ব্যবহার করা যায়। যেমন কার্টুন স্থির ভিডিও, স্থাপত্য নকশা, ইনফোগ্রাফিক্স, ইত্যাদি। 

তবে আজকের এই প্রতিবেদনটিতে আমরা openai কোম্পানির প্রকাশিত সোরা (টেক্সট টু ভিডিও মডেল) নিয়ে আলোচনা করব। যার মাধ্যমে আপনি সোরা (Sora) সম্পর্কে জানতে পারবেন। তো চলুন শুরু করি। 

তবে সোরা সম্পর্কে জানার আগে আগে টেক্সট টু ভিডিও মডেল কি তা জেনে নেয়: টেক্সট টু ভিডিও মডেল একটি নতুন জেনারেটিভ মডেল। যেটি টেক্সট ডেটা থেকে ভিডিও তৈরি করতে ব্যবহার করা হয়। এই মডেলগুলি গভীর শিক্ষার তথ্য এবং সুপারভাইজড শিখানোর মাধ্যমে কাজ করে। এই মডেল কে এমন ভাবে তৈরি করা হয়েছে। 

যার মাধ্যমে কয়েকটি লেখা শব্দ দিলেই তা থেকে এই মডেল ভিডিও তৈরি করে দেয়। সাধারণত, এই মডেলগুলি দুটি ধাপে কাজ করে - প্রথমে, টেক্সট ডেটা থেকে ভাষা সম্প্রসারণ এবং লেখার বৈশিষ্ট্যগুলি তৈরি করে। পরবর্তীতে, এই বৈশিষ্ট্যগুলি ভিডিও তৈরি করতে ব্যবহার করা হয়। 

সোরা (Sora) কি

সোরা একটি এআই মডেল, যা পাঠ্য বা লিখা থেকে নির্দেশনাবলী নিয়ে বাস্তবসম্মত ও আপনার কল্পনা অনুযায়ী দৃশ্য বা ভিডিও ফুটেজ তৈরি করে। সোরা হল openAI গবেষণা সংস্থা কতৃক তৈরি টেক্সট টু ভিডিও মডেল। এটি আপনার লেখা কে নিয়ে বাস্তবসম্মত এবং আপনার লেখার বর্ণনা অনুযায়ী মুভিক্লিপ তৈরি করে দেয়। আপনি সোরার মাধ্যমে এক মিনিটের ভিডিও রেকর্ডিং করে নিতে পারবেন। 

OpenAI একটি আমেরিকা ভিত্তিক এআই গবেষণা সংস্থা। যারা ইতিমধ্যে চ্যাটজিপিটি 3.5 ও চ্যাটজিপিটি 4 প্রকাশ করেছে এবং খুব তাড়াতাড়ি সোরা (Sora) লঞ্চ করতে যাচ্ছে। তবে এটি শিল্পী, গবেষক, সোরার ব্যবহার এখন ট্রাইয়াল এর মধ্যে আছে।

সোরা কিভাবে কাজ করে

আমরা ইতিমধ্যেই জেনেছি যে, সোরা হল একটি এআই মডেল এবং একটি এআই টেক্সট টু ভিডিও মডেল‌। সোরা আপনার লেখাকে এআই এ্য মাধ্যমে যাচাই করে। একটি ছোট ছায়াছবি বা স্বল্পদৈর্ঘ্যের একটি ভিডিও বানিয়ে দেবে। এটি লেখা থেকে ভিডিও তৈরি করার কাজ করে। 

টেক্সট টু ভিডিও মডেলগুলো সাধারণত একটি নিউরাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে কাজ করে, যা টেক্সট ইনপুট নেয় এবং সেই ইনপুটের উপর ভিডিও তৈরি করে। এই মডেলগুলো আপনাকে অন্যান্য প্রযুক্তির মধ্যে সাধারণত বিশেষ স্কিল অথবা পূর্বাভাস ছাড়াই একটি ভিডিও তৈরি করতে সাহায্য করে। 

টেক্সট টু ভিডিও জেনারেটর (Text-to-Video Generator) মডেল: এই মডেলগুলো একটি প্রেডিক্টিভ ভিডিও তৈরি করতে সাহায্য করে, যা টেক্সট ইনপুট ব্যবহার করে। সোরার মডেলগুলো সাধারণত কিছু কাস্টমাইজড ভিডিও টেম্পলেট ব্যবহার করে যা টেক্সট ইনপুটের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন চিত্র, লেআউট, স্টক ভিডিও ইত্যাদি এডিট করে ভিডিও তৈরির কাজ করে।

এই মডেলগুলো ব্যবহার করে টেক্সট থেকে ভিডিও তৈরি করা হয়। যা অনুমোদিত এবং প্রায়শই সহজেই কাজ করা হয়।

সোরার ব্যবহার কিভাবে করা যায়

সোরা টেক্সট থেকে ভিডিও তৈরি করার জন্য। সোরার টেক্সট এর উপর আপনার যে ধরনের ভিডিও চান তার একটি লিখার বর্ণনা দিন। বর্ণনা দেওয়ার পর➡️ এই বাটনে ক্লিক করলেই আপনার উক্ত লেখাকে সোরা আপনার তথ্য অনুযায়ী একটি কাল্পনিক এবং বিস্তবসম্মত ভিডিও ফুটেজ তৈরি করে দেবে। যা ব্যবহার খুবই সহজ। আর সোরা টেক্সট টু ভিডিও এভাবেই তৈরি করে। 

সোরার ইতিহাস

আমরা জানি, সোরা একটি টেক্সট টু ভিডিও তৈরির জন্য এআই মডেল। আপনি জেনে অবাক হবেন যে, ইতিমধ্যেই ফেসবুকের মাদার কোম্পানি মেটা make a video, runway generator 2 এর মতো কিছু টেক্সট টু ভিডিও তৈরির মডেল খুবই সাম্প্রতি তৈরি হয়েছে। 

তবে এই সকল ভিডিও তৈরির প্লাটফর্ম গুলোর মতো সোরা ও একটি টেক্সট টু ভিডিও তৈরির প্লাটফর্ম। ওপেনএআই কিছু ভিডিও তৈরি করেছে সোরা দিয়ে। যেখানে দেখা যাচ্ছে একটি ড্রোন সুট করে একটি গাড়ির ভিডিও তৈরি করেছে। যা খুবই বাস্তবিক হয়েছে। 

তবে ভিডিও জেনারেটিং সোরা মডেলটি জন সাধারণের জন্য এখনো উম্মুক্ত করেনি। এটি শুধু লাল দলের মানুষের কাছে ব্যবহার করতে দিয়েছে। এছাড়াও openai কোম্পানিটি ভিডিও নির্মাতা, শিল্পী সহ কিছু সৃষ্টিশীল পেশাদার মানুষ কে ব্যবহার করতে দিয়েছে।

সোরার সুবিধা ও অসুবিধা সমূহ 

বর্তমানে যুগ কে এআই এর যুগ বলা যায়। তার বড় একটি উদাহরণ সোরা (Sora) । সোরা একেবারেই কোন রকম সীমাবদ্ধতা ছাড়াই ব্যবহার করা যায় না। এটি কিছু অসুবিধা ও রয়েছে। তাই এখন আমরা সোরার সুবিধা ও অসুবিধা সমূহ জেনে নিব।

সোরার সুবিধা সমুহ

১. সোরার পিছনের সহায়তাকারী প্রযুক্তি হল DALL-E 3 । এর জন্যেই সোরা খুব সুন্দর করে ভিডিও তৈরির করতে পারে।

২. OpenAI থেকে জানানো হয়েছে যে সোরাতে ব্যবহার করা ভিডিও গুলো সব ফ্রি স্টক ভিডিও থেকে নেওয়া হয়েছে। সোরা মাধ্যমে যে সকল ভিডিও তৈরি হবে। সেই সমস্ত ভিডিও গুলো কপিরাইট ফ্রি হবে। 

৩. সোরা এক মিনিটের শর্টস ফিল্ম গুলো তৈরি করে দেবে। 

৪. শর্টস ভিডিও গুলো ফেসবুক রিল, ইউটিউব শর্টস, ইন্সটাগ্ৰাম এর জন্য ভিডিও, এর জন্য ব্যবহার করতে পারবেন। 

৫. সোরার মাধ্যমে আপনি বাস্তব সম্মত ও আপনার ভাবনা অনুযায়ী ভিডিও তৈরি করতে পারেন। যা সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করে, আপনি কোন ধরনের ভিডিও তৈরি করতে চান। 

৬. এটির ব্যবহারের মাধ্যমে ইউটিউব, ফেসবুক ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদি মাধ্যম থেকে ফেসলেস ভিডিও তৈরি করে ইনকাম করতে পারবেন। 

সোরার অসুবিধা সমুহ

সোরা টেক্সট টু ভিডিও মডেলে কিছু সাধারণ অসুবিধা হতে পারে যেমন:

১. সোরা ভিডিও জেনারেটিং মডেল হওয়ার কারণে এটিতে কোন ধরনের যৌন বিষয়ক খারাপ ভিডিও তৈরি করতে পারবেন না। 

২. আপনার লেখা অনুযায়ী ভিডিও তৈরি করতে না ও পারে। কারণ সঠিক ভাবে প্রস্ফট লেখতে না পারলে উল্টাপাল্টা ভিডিও তৈরি হতে পারে। যেমন: আপনি লিখেছেন একটি বিড়াল তার মালিক কে আদর করছে। এই রকম কিছু লিখার পর আপনি ভিডিও জেনারেট বাটনে ক্লিক করলে দেখা যাবে। বিড়ালের চারটি পায়ের জায়গায় পাঁচটি দিয়েছে।

৩. ভিডিও তৈরির এআই মডেল সোরা অনেক সময় আপনার লিখা অনুবাদ করতে নাও পারে।

সোরা কোন কোন ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারে

সোরা টেক্সট টু ভিডিও মডেল বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে তার মধ্যে থেকে উল্লেখযোগ্য ও গুরুত্বপূর্ণ কিছু ব্যবহার করার ক্ষেত্র গুলো আপনাদের সাথে আলোচনা করব যেমন:

১. শিক্ষার ক্ষেত্রে: শিক্ষার মাধ্যমে টেক্সট থেকে ভিডিও তৈরি করা যেতে পারে, উদাহরণস্বরূপ পাঠ্য বই থেকে উপকথা গল্প তৈরি করা।

২. প্রেজেন্টেশন: টেক্সট প্রেজেন্টেশন তৈরির জন্য এই মডেল ব্যবহার করা যেতে পারে, যাতে প্রেজেন্টেশনে ভিডিও, এনিমেশন ইত্যাদি যোগ করা যায়।

৩. সামাজিক মাধ্যম: সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে অত্যন্ত স্বচ্ছতা এবং নিবন্ধন ব্যতীত ভিডিও তৈরি করা যায়, যেটি প্রেরণা, শেয়ার অথবা বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ব্যবহার করা হয়। ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউব এর জন্য শর্টস তৈরি করা যায়। 

৪. সেবা ব্যবসা: কোন প্রোডাক্ট বা সেবা বিজ্ঞাপনের জন্য টেক্সট থেকে ভিডিও তৈরি করা যেতে পারে, যা আকর্ষণীয় এবং ব্যাপক বাস্তবসম্মত করে তৈরি করতে পারে।

৫. ব্যক্তিগত ব্যবহার: ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রস্তুত করা ভিডিও, যেমন পারিবারিক স্মৃতি, সাম্প্রতিক ঘটনা ইত্যাদি তৈরি করা যেতে পারে।

৬. এছাড়াও সকল ধরনের ছোট ভিডিও আপনি তৈরি করে। যেকোনো কাজে লাগাতে পারবেন। সোরার দ্বারা তৈরিকৃত ভিডিও গুলো কপিরাইট ফ্রি ভিডিও হবে। যার ফলে আপনার ভিডিওতে কপিরাইট স্ট্রাইক খাওয়ার ঝামেলা থাকবে না। 

তবে এই ধরনের মডেল সম্প্রতি উন্নত হচ্ছে এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুযোগ সৃষ্টি করছে। তাই বিভিন্ন সেবায় ব্যবহার করতে সোরা ব্যবহার করতে পারেন। যার ফলে আপনার সময়, শ্রম, অর্থ সকল কিছু বেঁচে যাবে। যার ফলে আপনি ব্যক্তিগত ও পেশাগত ভাবে ভালো অবস্থানে যেতে পারবেন।

উপসংহার

সোরা টেক্সট টু ভিডিও মডেল একটি চমৎকার প্রযুক্তি। যা লেখা এবং বাণীকে রূপান্তর করে ভিডিও আকারে প্রকাশ করে। এই মডেলের মাধ্যমে আমরা ক্রিয়াশীল এবং নতুন কিছু উৎপাদনের মাধ্যমে ভিডিওগুলি তৈরি করতে পারি। প্রযুক্তিগত উন্নতির সাথে সাথে সোরা মডেলগুলি ব্যবহারের সুযোগ বাড়ছে এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে এটির প্রযুক্তি উদ্ভাবনে নতুন সম্ভাবনা সৃষ্টি হচ্ছে। শিক্ষা, বিজ্ঞাপন, সামাজিক মাধ্যম, ব্যক্তিগত ব্যবহার, এবং প্রেজেন্টেশনের মধ্যে এই মডেলগুলির ব্যবহার ব্যতিক্রমমূলক এবং উপকারী একটি জায়গা দখল করছে। সোরার এআই ভিডিও তৈরির মডেল আমাদের প্রযুক্তিগত জীবনে পরিবর্তন নিয়ে আসছে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url