দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তির ১০ টি ব্যবহার জেনে নিন

দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তির ১০ টি ব্যবহার এর ছবি
প্রযুক্তি আমরা সবাই ব্যবহার করছি। কেউ একটু কম তো কেউ একটু বেশি। তবে এটা মানতে হবে যে, আমরা প্রতিদিনই কোন না কোন প্রযুক্তি ব্যবহার করছি। প্রতিদিনের জীবন মান উন্নয়ন হচ্ছে নানা রকম প্রযুক্তি ব্যবহার করার কারণে। যা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের কাজ কে অনেক সহজ করে তুলেছে। এই সকল প্রযুক্তি ব্যবহার করার ফলে আমাদের মূল্যবান সময় বেঁচে যাচ্ছে। যা আমাদের অন্য কাজ করার জন্য সময় করে দিচ্ছে। দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তি ১০ টি ব্যবহার হল: মোবাইল ফোন, ইলেকট্রনিক ফ্যান, ইন্টারনেট, গ্যাসের চুলা, ওয়াশিং মেশিন, লিফট, মোটরসাইকেল, বিদ্যুৎ, ফ্রিজ, ইলেকট্রনিক ওয়াটার হিটার। তাহলে চলুন জেনে নেই এই সকল প্রযুক্তির ব্যবহারের ক্ষেত্র গুলো। 

দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তির ১০ টি ব্যবহার

দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তির ১০ টি ব্যবহার নিয়ে নিচে আলোচনা করা হল: 

১. মোবাইল ফোন

মোবাইল ফোন হল আধুনিক প্রযুক্তির এক বিষ্ময়কর উদ্ভাবন। যা ছোট-বড় সকলেই ব্যবহার করে। যাকে ছাড়া এক মিনিট ও থাকা যায় না। কি নেই এতে দেশ থেকে দেশ এবং দেশ থেকে বিদেশে সকল জায়গায় করা যাচ্ছে যোগাযোগ। আমরা প্রতিদিনই মোবাইল ফোন ব্যবহার করে কল, মেসেজ, গেম খেলা, কেনা কাটা, মোবাইল ব্যাংকিং সেবা ব্যবহার করে বিকাশ, নগদ, রকেট, উপায় এর মাধ্যমে টাকা পাঠানো ইত্যাদি করা যাচ্ছে খুব সহজেই। যার ফলে এক দিকে সময় ও অর্থ দুটোই সাশ্রয় হচ্ছে। 

তাই বালাই যায় যে, মোবাইল ফোন এর মাধ্যমে দুনিয়া এখন হাতের মুঠোয়। বর্তমানে পড়ালেখা, যোগাযোগ, অনলাইন গেমস সব হচ্ছে একটি মাত্র ডিভাইস দিয়ে। আর সেটি হলো মোবাইল ফোন। 

২. ইলেকট্রনিক ফ্যান 

ইলেকট্রনিক ফ্যান হল বিদ্যুৎ এর মাধ্যমে চালিত পাখা। যা বিদ্যুৎ এর মাধ্যমে চলে। মানুষ কে কোন কাজ করতে হয় না। শুধু এক বার ইলেকট্রনিক বোর্ডে থাকা সুইচ অন করলে এটি ঘুরা শুরু করবে এবং ঠান্ডা বাতাস দিবে। তাই শরীর কে ঠান্ডা করতে ইলেকট্রনিক ফ্যানের জুড়ি নেই। প্রযুক্তির কল্যাণে আজ আমরা অনেক স্বাচ্ছন্দে জীবন যাপন করতে পারছি। 

তবে যখন এই ইলেকট্রনিক ফ্যান ছিল না। তখন মানুষ জন অনেক কষ্ট করে তালের পাখা ব্যবহার করত। ফলে মানুষ কে পাখা ঘুড়ানো জন্য হাত ব্যবহার করতে হতো এবং যা ছিল বেশ কষ্ট সাধ্য ব্যপার। যেহেতু বর্তমান যুগ আধুনিক যুগ। তাই তালের পাখার সনাতন পদ্ধতি বাদ দিয়ে এখন আমরা শরীর ঠান্ডা রাখতে ইলেকট্রনিক ফ্যানের ব্যবহার করি। এখন তালের পাখা বা অন্য পাখা নেই বললেই চলে। সময়ের সাথে সবাই উন্নতি লাভ করেছে। যদিও শীতে ফ্যানের ব্যবহার করা হয় না। তবে গতকাল আসার সাথে সাথেই এর ব্যবহার সকল জায়গায় বেড়ে যায়। 

৩. ইন্টারনেট

ইন্টারনেট হল একটি বৃহত্তর গ্লোবাল নেটওয়ার্ক। যা বিভিন্ন কম্পিউটার, ডিভাইস, রাউটার, টিভি, সার্ভার, মোবাইল ফোন, সেন্সর, ডেটা কেন্দ্র ইত্যাদির সংযোগ করে একে অপরের সাথে তথ্য আদান-প্রদান করে। এটি সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে থাকা জালের মতো কাজ করে। যা আমাদের সারা বিশ্বের সাথে কানেক্ট করে। 

ইন্টারনেট ব্যবহার করে ফেসবুকিং, ইউটিউবিং সহ অন্য সকল কাজ অনলাইনে করা যায়। আশ্চর্যের কথা হল বর্তমানে ক্রিপ্ত কারেন্সি নামক অনলাইন মুদ্রা ও বের হয়ে গেছে। যার শুধু অনলাইনে বা ইন্টারনেট জগতেই এর অস্তিত্ব রয়েছে। ক্রিপ্ট কারেন্সি জগতে সবচেয়ে মূল্যবান মুদ্রা হল বিককয়েন। যার মূল্য সহ সকল কাজ ইন্টারনেট এর মাধ্যমে সম্পাদন করা যাচ্ছে। 

৪. গ্যাসের চুলা 

গ্যাসের চুলা হল গ্যাস দ্বারা চালিত এক ধরনের চুলা। যা গ্যাস দিয়ে এই চুলার মাধ্যমে রান্না করা যায়। মূলত এখানে সিলিন্ডারের কম্প্রেসড গ্যাস ব্যবহার করা হয়। বর্তমানে আমরা যে গ্যাস প্রতিদিন ব্যবহার করি তা হল এল পি জি বা তরলকৃত প্রেট্রোলিয়াম গ্যাস। 

গ্যাস সিলিন্ডারের একটি মূল বিশেষ ভাবে বানানো চুলার সাথে লাগানো থাকে। যখন আগুন জ্বালা হয় তখন এই চুলার মূল দিয়ে আগুন নির্গত হয় এবং আমরা বাড়ির সকল রান্না বান্না করে থাকি এর মাধ্যমে। তবে আমরা অতীতে মাটির চুলা দিয়ে রান্না করাতাম। সেখানে জ্বলানি হিসেবে কাঠ, খর পুড়িয়ে রান্না করত। যদি এখন আর সেই দিন নেই প্রযুক্তির কল্যাণে আজ আমরা গ্যাসের চুলায় খুব সহজেই গ্যাস ব্যবহার করে রান্না করতে পারছি। তাই আজকে আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তির ব্যবহার করছি এবং জীবন যাপন কে করে তুলেছি আরো সুখ ও সাচ্ছন্দ্যময়। যা আমাদের জন্য বর্তমানে আশীর্বাদ হয়ে এসেছে আমাদের প্রত্যেকের জীবনে। 

৫. ওয়াশিং মেশিন

দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তির ব্যবহার এর মধ্যে রয়েছে ওয়াশিং মেশিন। ওয়াশিং মেশিন মেশিন হল বিদ্যুৎ এর মাধ্যমে চালিত এক ধরনের কাপড় ধোয়ার যন্ত্র। এটি এমন একটি মেশিন যাতে একটি সুইচ বাটনে ক্লিক করলেই এই মেশিন কাপড় পরিষ্কার করতে লাগে এবং মুহূর্তের মধ্যেই এই আধুনিক প্রযুক্তিটি কাপড় পরিষ্কার করে দেই। যার ফলে আমাদের কাপড় হাত দিয়ে খাচতে হয় না। খুব অল্প সময়েই সকল ধরনের কাপড় এর মধ্যে দিয়ে পরিষ্কার করা যায় এবং এটি ব্যবহার করা এতটাই সহজে একটি ছোট্ট বাচ্চা ও এটি পরিচালনা করে তার নিজের কাপড় পরিষ্কার করতে পারবে। 

যদিও এটি শহরাঞ্চলে বেশি দেখা যায়। এখনো গ্রামের মানুষ সনাতন পদ্ধতিতে কাপড় খাচে। তবে ওয়াশিং মেশিন আসার পরেই এর ব্যবহার আমাদের প্রতিদিনের কাপড় খাচাকে করে তুলেছে আরো সহজ এবং স্বাচ্ছন্দ্যময়। ওয়াশিং মেশিন ছোট বড় সকল সাইজের রয়েছে। আপনার পরিবারের সদস্যদের উপর নির্ভর করে আপনি এটি ক্রয় করতে পারেন। ছোট সাইজের ওয়াশিং মেশিন এর দাম কম এবং বড় সাইজের দাম একটু বেশি লাগতে পারে। তবে ওয়াশিং মেশিন এর দাম কাস্টমারের চাহিদা এবং ব্র্যান্ডের উপর নির্ভর করে। 

৬. লিফট 

লিফট হল বিদ্যুৎ দ্বারা চালিত এক ধরনের অস্থায়ী ঘর। যা শুধু উপরে উঠে এবং নিচে নামে। লিফট ব্যবহার করা খুব কঠিন ও না আবার খুব সহজ ও নয়। তবে লিফট ব্যবহার করা জানলে এটি খুব সহজ মনে হবে। তবে এটি ব্যবহার করার আগে কিছু বিশেষ চিহ্ন জেনে রাখা ভালো। ⏫ এই ধরনের চিহ্ন হলে বুঝতে হবে লিফট উপরে যাওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে আবার ⏬ এই ধরনের চিহ্ন দেখলে বুঝতে হবে লেফটটি নিচে যাবে। অর্থাৎ এটি ব্যবহার করার সময় কত নম্বর ফ্লোরে যেতে চান সেটা চেপে এই ধরনের যে সকল চিহ্ন দেখা যায়। তার উপর ক্লিক করলেই আপনাকে আপনার গন্তব্যে নিয়ে যাবে।

তবে এটি সকল বিল্ডিং দেখা যায়। বিশেষ করে ক্লিনিক বা হাসপাতাল, রেস্তোরাঁ, মল ইত্যাদিতে। যদি ও এটি বড় বড় বিল্ডিং এ দেখা যায়। যা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তির ব্যবহার কে আরো এক ধাপ এগিয়ে নিয়েছে। প্রযুক্তি আমাদের করে তুলেছে স্মার্ট এবং সেবা দিচ্ছে আরো সুন্দর করে। 

৭. মোটরসাইকেল 

মোটরসাইকেল হল পেট্রোল এবং অকটেন এ চালিত এক সাইকেল। সাইকেল এর মতই এর দুটি সামনে ও পিছনে চাকা থাকে। তবে এটিতে এক যন্ত্র লাগিয়ে তেলের মাধ্যমে চলে বলে এর নাম মোটরসাইকেল। এটি চালাতে আপনার শারীরিক কোনো শক্তি শক্তি খরচ করতে হয় না। যদি সাইকেল চালাতে পা দিয়ে চালাতে শরীরের শক্তির প্রয়োজন। সাইকেল শরীরের শক্তির উপর নির্ভর করে এটি কত দ্রুত চলতে। অন্য দিকে মোটরসাইকেল কত সিসির উপর নির্ভর করে এবং তেলের ও নিভর করে এটি কত দূর যাবে। 

যাইহোক, মোটরসাইকেল আমরা দৈনন্দিন জীবনের প্রযুক্তির ব্যবহার করে দ্রত সময়ের মধ্যে যে কোন জিনিস পৌঁছাতে এবং যোগাযোগের ক্ষেত্রে এর জুড়ি নেই। আর মোটর সাইকেল আমাদের daily life কে করে তুলেছে আর দ্রুতগামী। বর্তমানে মোটরসাইকেল নিয়ে অফিস যাওয়া, বেড়াতে যাওয়া, পন্য পরিবহন ইত্যাদি থেকে শুরু করে বিদেশ ভ্রমন পর্যন্ত এর ব্যবহার করা হচ্ছে। এখন অনেক মোটরসাইকেল ট্রাভেল ব্লগার ও বের হয়েছে যারা দেশ থেকে দেশান্তরে যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই শুধু মোটরসাইকেল নিয়ে বাংলাদেশের একজন দম্পতি সাজেদুর রহমান ও রহিমা আক্তার ভারতের আটটি রাজ্য ঘুরেছে। 

৮. বিদ্যুৎ 

বিদ্যুৎ হল তেল, গ্যাস, কয়লা, পারমাণবিক চুল্লি থেকে তাপ শক্তি কে কাজে লাগিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়। দৈনন্দিন জীবনে বিদ্যুৎ এর ব্যবহার অনেক বেশি। যেমন কম্পিউটার চালাতে বিদ্যুৎ, মোবাইল, টর্চ লাইট এবং ব্যাটারি চালিত যন্ত্র কে চার্জ দিতে লাগে বিদ্যুৎ। ঘরের কোনো জিনিস দেখতে এবং আলোকিত করতে বাল্ব, গরম লাগলে ফ্যান, রান্নায়, কাপড় পরিষ্কার করতে ইত্যাদি সকল কাজ করতে লাগে বিদ্যুৎ। 

এটি শুধু যে দৈনন্দিন জীবনে লাগে তা নয় এটি একটি দেশের বিকাশের একটি অপরিহার্য অংশ। আর এটি কেন্দ্র করে অনলাইন জগত গড়ে উঠেছে। তাই বলা যায় যে, বিদ্যুৎ এর ব্যবহার ছাড়া মানুষের জীবন অচল। কারণ বর্তমানে সকল কাজে বিদ্যুৎ ব্যবহার বেড়েই চলেছে। 

৯. ফ্রিজ

ফ্রিজ হল খাদ্য পানীয় সতেজ এবং টাটকা রাখার একটা চমৎকার উপায়। এখানে সকল ধরনের খাদ্য ও পানীয় সহ বিভিন্ন ধরনের খাবার অনেক দিন ধরে মজুদ করা যায় এবং এতে খাবার নষ্ট হয় না। দৈনন্দিন জীবনে প্রযুক্তির ব্যবহার এর মধ্যে ফ্রিজ সবচেয়ে ব্যবহার করা হয়। এটি খাদ্য ভালো রাখে বলে এটিতে মানুষের চাহিদা তুঙ্গে। এটি সাধারণত বিদ্যুৎ সংযোগ এর মাধ্যমে চলে। তাই এটি বিদ্যুৎ এর উপর নির্ভরশীল একটি প্রযুক্তি। 

যাইহোক, ফ্রিজের ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এটির মানুষের নির্ভরতা ও বাড়ছে। তবে মনে রাখতে হবে এটি ঠান্ডা সর্দি কাশি এবং ফুসফুস জনিত রোগের মূল কারণ। তাই এটির যথাযথ ব্যবহারের দিকে আমাদের নজর দিতে হবে এবং এর ভালো ও খারাপ দিক জেনে তা পালন করতে হবে। 

১০. ইলেকট্রনিক ওয়াটার হিটার

ইলেকট্রনিক ওয়াটার হিটার বিদ্যুৎ এর মাধ্যমে চালিত একটি হিটারের নাম। এটি পানি গরমের কাজে ব্যবহৃত হয়। এটি কে বিদ্যুৎ সংযোগ দিলেই হিটারের একটি প্রান্ত গরম হয় এবং পানি গরম করে। এটি গরম ও শীতকালে গরম পানিতে ডিম সিদ্ধ করতে, চায়ের পানি গরম করতে এবং শীতকালে ঠাণ্ডা পানি কে গরম করতে ব্যবহার করা হয়। তবে এটির ব্যবহার শীতকালে অনেক বেড়ে যায়। গরমকালে তেমন ব্যবহার হতে দেখা যায় না। 

উপসংহার 

আসা করি আজকের এই প্রতিবেদনটি আপনার খুব ভালো লেগেছে। আজকের এই প্রতিবেদনটি থেকে আপনি দৈনন্দিন জীবনে যে সকল প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয় তা জানতে পেরেছেন। তবে এই সকল প্রযুক্তির ব্যবহার, ভালো ও খারাপ দিক জেনে তা আমাদের ব্যবহার করা উচিত। কারণ প্রযুক্তি আমাদের যেমন কাজ সহজ করে, সময় বাঁচায়। ঠিক অপর দিকে এটির ব্যবহার না জানলে দৈনন্দিন জীবনে এই প্রযুক্তি সবার জীবনে কাল হয়ে নেমে আসতে পারে। আসুন আমরা প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার করি এবং প্রতিদিনের জীবন কে আরো বেশি উপভোগ করি।

শেষ কথা: আপনার সুস্বাস্থ্য কামনা করছি। আমাদের ওয়েবসাইটে প্রতিদিন তথ্যবহুল প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। তাই আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন। কোন ধরনের প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করুন। আসসালামুয়ালাইকুম ধন্যবাদ। 

Share this post with everyone

See previous post See next post
No one has commented on this post yet
Click here to comment

of this websitePrivacy Policy Accept and comment. Every comment is reviewed.

comment url